আরও বেড়েছে চাল-তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম

০৩ জানুয়ারি ২০২১, ০১:৫২
ইত্তেফাক টাইমস ডেস্ক

চালের দাম নিয়ন্ত্রণে সরকার শুল্ক কমালেও গত এক সপ্তাহে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যটির দাম বেড়েছে। একই সঙ্গে দাম বেড়েছে ভোজ্যতেলের। সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

চাল ও তেলের পাশাপাশি গত এক সপ্তাহে মসুর ডাল, ছোলা, আদা, জিরা, দারুচিনি, এলাচ ও বয়লার মুরগির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে আলু, পেঁয়াজ ও ডিমের।

রাজধানীর বিভিন্ন খুচরা বাজার থেকে তথ্য সংগ্রহ করে গত শুক্রবার (১ জানুয়ারি) নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়া ও কমার এ প্রতিবেদন তৈরি করেছে টিসিবি। রাজধানীর শাহজাহানপুর, মালিবাগ বাজার, কারওয়ান বাজার, বাদামতলী বাজার, সূত্রাপুর বাজার, শ্যামবাজার, কচুক্ষেত বাজার, মৌলভীবাজার, মহাখালী বাজার, উত্তরা আজমপুর বাজার, রহমতগঞ্জ বাজার, রামপুরা এবং মীরপুর-১ নম্বর বাজার থেকে এসব পণ্যের দামের তথ্য সংগ্রহ করা হয়।

টিসিবির তথ্য অনুযায়ী, গত এক সপ্তাহে চিকন চালের দাম ২ দশমিক ৪৪ শতাংশ বেড়ে প্রতি কেজি ৬০ থেকে ৬৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মাঝারি মানের পাইজাম ও লতা চালের দাম ১ দশমিক ৮০ শতাংশ বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫৩ থেকে ৬০ টাকায়। ২৮ ডিসেম্বর চিকন চাল এবং ২৯ ডিসেম্বর মাঝারি মানের চালের দাম বাড়ে।

অথচ এই দাম বাড়ার আগের দিন ২৭ ডিসেম্বর চালের আমদানি শুল্ক ৬২ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২৫ শতাংশ করা হয়েছে বলে জানান খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

অন্যদিকে, চালের পাশাপাশি গত এক সপ্তাহে বেড়েছে সব ধরনের ভোজ্য তেলের দাম। টিসিবির তথ্য অনুযায়ী, লুজ সয়াবিন তেলের দাম ২ দশমিক ৩৭ শতাংশ প্রতি লিটার ১০৭ থেকে ১০৯ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। বোতলের ৫ লিটার সয়াবিন তেলের দাম দশমিক ৯০ শতাংশ বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫৪০ থেকে ৫৮০ টাকায়।

এ ছাড়া বোতলেরিএক লিটার সয়াবিন তেলের দাম ২ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ বেড়ে ১২০ থেকে ১২৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এক লিটার লুজ পাম অয়েলের দাম ২ দশমিক ১৩ শতাংশ বেড়ে ৯৫ থেকে ৯৭ টাকা হয়েছে আর এক লিটার সুপার পাম অয়েলের দাম ৩ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ৯৮ থেকে ১০২ টাকা।

দাম বাড়ার এ তালিকায় থাকা মাঝারি দানার মশুর ডালের দাম সপ্তাহের ব্যবধানে ৫ দশমিক ৮৮ শতাংশ বেড়ে প্রতি কেজি ৮৫ থেকে ৯৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ছোলার দাম ৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৭৫ থেকে ৮০ টাকায়। আমদানি করা আদার দাম ১৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ বেড়ে প্রতি কেজি ৮০ থেকে ১০০ টাকা হয়েছে। জিরার দাম ১৪ দশমিক ২৯ শতাংশ বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ থেকে ৪৫০ টাকা দরে।

এ ছাড়া দারুচিনির ১৪ দশমিক ৩৩ শতাংশ দাম বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকায়। এলাচের দাম ১ দশমিক ৭৫ শতাংশ বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৫০০ থেকে ৩৩০০ টাকা দরে। আর বয়লার মুরগির দাম ১ দশমিক ৯৬ শতাংশ বেড়ে প্রতি কেজি হয়েছে ১২৫ থেকে ১৩৫ টাকা।

অপরদিকে দাম কমার তালিকায় থাকা আলুর দাম সপ্তাহের ব্যবধানে ৯ দশমিক ৫৭ শতাংশ কমে প্রতি কেজি বিক্রি করা হচ্ছে ৪০ থেকে ৪৫ টাকায়। দেশি পেঁয়াজের দাম ২৭ দশমিক ২৭ শতাংশ কমে প্রতি কেজি ৩৫ থেকে ৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আমদানি করা পেঁয়াজের দাম ২৫ শতাংশ কমে প্রতি কেজি ২৫ থেকে ৩৫ টাকা হয়েছে। আর ডিমের দাম ৬ দশমিক ৪৫ শতাংশ কমে হালি ২৮ থেকে ৩০ টাকা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন :